আমাদের সম্পর্কে-

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বৈদেশিক বিনিয়োগ বৃদ্ধির আমন্ত্রণে, বিশেষায়িত আবাসন খাতে প্রবাসী (NRB) ও স্বদেশীদের সমন্বয়ে সর্বপ্রথম ও বৃহত্তর বিনিয়োগ “প্রবাসী পল্লী” প্রকল্প।

সভ্যতার ঊষালগ্ন থেকেই মানুষ তার নিজের প্রয়োজনে মৌল মানবিক চাহিদা পূরনে পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে ভিন্ন ভিন্ন পরিবেশে তাদের বসবাসের জন্য আবাসন তৈরি করে আসছে। গুরুত্ব ও অপরিহার্যতা বিবেচনায় আবাসন আজ মানুষের মৌলিক অধিকার হিসেবে বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি লাভ করেছে। স্বাধীনতা পরবর্তী এ দীর্ঘ সময়ে আমাদের আগে কেউ কখনো প্রবাসী বাংলাদেশীদের (NRB) আবাসনের কথা ভাবেনি। প্রবাসীদের রক্ত-ঘামে অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রা বিনিয়োগের সুযোগ সীমিত। এ বিষয় মাথায় রেখে প্রবাসী পল্লী গ্রুপ, প্রবাসী ও স্বদেশী বিভিন্ন পেশা ও শ্রেণীর মানুষের জন্য পৃথকভাবে সুনির্দিষ্ট আবাসন প্রকল্প নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করে। যাতে বিনিয়োগ হবে বিশ্বাসে মজবুত, সম্ভাবনাময় ও নিশ্চিত আগামীর ব্যবস্থা।

প্রবাসী পল্লী গ্রুপের উদ্যোক্তা বিনিয়োগকারীগণ যুক্তরাজ্য প্রবাসী বাংলাদেশী (NRB)। বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রী, বিদেশী রাষ্ট্রদূত ও দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের আশীর্বাদপুষ্ট এ প্রকল্প, প্রবাসীদের বিনিয়োগের জন্য এক দারুণ সুযোগ। রাজউক পূর্বাচল মেগাসিটির পাশ ঘেঁষে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য মন্ডিত সবুজে ঘেরা জমিনে গড়ে উঠেছে দৃষ্টিনন্দন প্রবাসী পল্লী আবাসন প্রকল্প। আমাদের সদিচ্ছার আত্মপ্রকাশ ঘটে ২০ জুন, ২০০৭ ইং হোটেল সোনারগাঁও-এ অনুষ্ঠিত সেমিনারে যাতে উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন মন্ত্রী রুহুল আমীন হাওলাদার, ইতালীয়ান রাষ্ট্রদূত ও ইতালীয়ান বিনিয়োগকারীগণ।

২৯ জানুয়ারী, ২০০৮ ইং হোটেল শেরাটনে এক আড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে প্রবাসী পল্লী আবাসন প্রকল্পের প্রাথমিক উদ্বোধন হয়। উক্ত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তৎকালীন পররাষ্ট্র উপদেষ্টা ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী, ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিব, ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরী, চেয়ারম্যান বাংলাদেশ এনজিও ফেডারেশন চেয়ারম্যান ব্রিটিশ-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স, রাজউকের কর্মকর্তা এবং প্রবাসী ব্যবসায়ীবৃন্দ।

আগষ্ট, ২০০৮ ইং ব্রিটিশ বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এর একটি প্রতিনিধি দল প্রবাসী পল্লী আবাসন প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেন। তারা তৎকালীন বাণিজ্য উপদেষ্টা, বিনিয়োগ বোর্ডের চেয়ারম্যান, বিটিসিএল এর চেয়ারম্যান এবং প্রবাসী পল্লী গ্রুপের চেয়ারম্যান এর সাথে এক মতবিনিময় সভায় অংশ গ্রহণ করেন। উক্ত প্রতিনিধি দল, এ প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য সকল প্রকার সহায়তার আশ্বাস দেন।
জানুয়ারী, ২০০৯ ইং ভারতীয় ব্রিটিশ উদ্যোক্তা নাগরেচা ব্রাদার্স এর বিনোদ নাগরেচা ও কাউন্সিলর ঊন্মেষ দেশাই সরেজমিনে প্রকল্প পরিদর্শন করেন। পরদিন তারা প্রবাসী পল্লী গ্রুপ-এর চেয়ারম্যান মহোদয়ের মাধ্যমে তৎকালীন মহামান্য রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান এর সাথে তার বাসভবনে সাক্ষাত করেন। মহামান্য রাষ্ট্রপতি তাদেরকে বাংলাদেশে বিনিয়োগের সম্ভাবনাময় খাত স¤পর্কে অবহিত করেন এবং প্রবাসী পল্লী গ্রুপ কে সর্বাত্মক সহযোগীতার আশ্বাস দেন।
২৯শে এপ্রিল, ২০০৯ ইং লন্ডনে একটি কনভেনশন হলে প্রবাসী পল্লীর আবাসন প্রকল্পের প্লট বন্টন ও বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ব্রিটিশ পার্লামেন্ট সদস্য মি. ষ্টিফেন টিমস এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তৎকালীন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জনাব রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু ও জাতীয় সংসদের তৎকালীন চিফ হুইপ উপাধাক্ষ্য আবদুস শহীদ, এমপি সহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

২০০৯ ইং ইউ কে বাংলা ট্রেড কাউন্সিল ও প্রবাসী পল্লী গ্রুপের যৌথ উদ্যোগে “বাংলাদেশে প্রবাসীদের বিনিয়োগের সমস্যা ও সম্ভাবনা” শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সংস্থাপন ও জন প্রশাসন বিষয়ক উপদেষ্টা জনাব এইচ. টি ইমাম সহ অন্যান্য মাননীয় সংসদ সদস্যবৃন্দ।
১০ ফেব্রুয়ারী, ২০০৯ ইং যুক্তরাজ্যের তৎকালীন স্বাস্থ্য সচিব ফ্রাঙ্ক ডেভসন ও ক্যামডেন এর মেয়র নুরুল ইসলাম পুতুলের নেতৃত্বে যুক্তরাজ্যের দু’জন কাউন্সিলর সহ ১৩ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাৎ করেন। তারা বাংলাদেশে বিনিয়োগের ভবিষ্যত নিয়ে আলোচনা করেন। এ সময় প্রবাসী পল্লী গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মুহিদুর রহমান প্রবাসী পল্লী আবাসন প্রকল্প এবং প্রবাসী বিনিয়োগের উজ্জ্বল সম্ভাবনা সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সম্ভাব্য সব রকম সহযোগীতার আশ্বাস দেন।
সম্মানিত বিচারপতি ও আইনজীবীদের আগ্রহে তাদের জন্য একটি পৃথক ও স্বতন্ত্র আবাসন প্রকল্পের উদ্যোগ নেয়া হয়। ২৫ জুলাই, ২০১০ ইং সুপ্রীম কোর্ট আইনজীবী সমিতির অডিটরিয়ামে বিচারপতি ও আইনজীবী পরিবারের জন্য পরিকল্পিত আবাসন প্রকল্প “পূর্বাচল আইন পল্লী” শুভ উদ্বোধন হয়। উক্ত অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের তৎকালীন প্রধান বিচারপতি মোহাম্মদ ফজলুল করিম, বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম-এমপি, মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। এ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক-এমপি, মাননীয় প্রতিমন্ত্রী স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়। বিচারপতি আমিরুল কবির চৌধুরী, সাবেক চেয়ারম্যান মানবাধিকার কমিশন। এ্যাডভোকেট আবদুল বাসেত মজুমদার, ভাইস চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ বার কাউন্সিল। এ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, সভাপতি, সুপ্রীমকোর্ট আইনজীবী সমিতি। এ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আবু, সাধারণ সম্পাদক আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ। এ্যাডভোকেট শফিকুল ইসলাম বাবুল-উপদেষ্টা, আইন পল্লী। এ্যাডভোকেট মোহাম্মদ নাজিবুল্লাহ হিরু-সাধারণ সম্পাদক, ঢাকা জেলা আইনজীবী সমিতি।

এরই ধারাবাহিকতায় পূর্বাচল শাহ্ পরান সিটি ও প্রবাসী পল্লী শাহ্ আমানত নগরী নামে আরো দুটি প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু হয় যা বাস্তবায়নাধীন।
এছাড়াও ক্যাডেট কলেজের প্রাক্তণ শিক্ষার্থীদের আগ্রহে ক্যাডেট সিটি-১ এবং ক্যাডেট সিটি-২ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে।
উক্ত প্রকল্প সমূহ প্রবাসী বাংলাদেশীদের (ঘজই) স্বদেশে বিনিয়োগের সুযোগকে অনুপ্রাণিত ও অবারিত করেছে। এই সফল বিনিয়োগের ফলশ্রুতিতে আমাদের প্রথম প্রকল্প প্রবাসী পল্লী আবাসন ও পূর্বাচল প্রবাসী পল্লী প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ে বিনিয়োগকৃত প্লটসমূহ অচিরেই আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করা হবে।

প্রকল্প এলাকায় অবকাঠামোগত উন্নয়ন পরিকল্পনা ঃ

  • বাংলাদেশে সর্ববৃহৎ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত পাইকারী কাপড়ের মার্কেট, রাজউক পূর্বাচলের সন্নিকটে (মাধবদী বাবুর হাট ও ভুলতা গাউছিয়ার মধ্যস্থলে ছনপাড়া বাজার এলাকায়)।
  • আন্তর্জাতিক মানের হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ (প্রবাসী পল্লী প্রকল্প এলাকায়)।
  • মধ্যবিত্ত জনগোষ্ঠির জন্যে স্টুডিও এ্যাপার্টমেন্ট। পর্যায়ক্রমে জেলা ও উপজেলায় এ উদ্যোগ নেয়া হবে।
  • পূর্বাচল প্রবাসী পল্লী প্রকল্পে ৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন বিদ্যুৎ প্রকল্প (বাস্তবায়নাধীন)।

 

প্রবাসী পল্লী গ্রুপের অন্যান্য উদ্যোগ ঃ

ইলেক্ট্রনিক্স

  • প্রবাসী পল্লী গ্রুপের রয়েছে ডিক্সন ব্র্যান্ড ব্যানারে ইলেক্ট্রনিক্স ব্যবসা। যাতে রয়েছে টিভি, ফ্রিজ, মোবাইল সহ দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহার্য্য বিনোদন ও গৃহস্থালীর বিভিন্ন উপকরণ।
  • রাজধানী ঢাকা সহ দেশের উল্লেখযোগ্য শহরে রয়েছে স্বনামধন্য ডিক্সন ব্রান্ডের প্রবাসী পল্লী ইলেক্ট্রনিক্স-এর সমৃদ্ধ শো-রুম/আউটলেট সমূহ।

 

দৈনিক পত্রিকা

  • ‘সবদিকের খবর, খবরের সবদিক’ স্লোগান নিয়ে প্রবাসী পল্লী গ্রুপের জাতীয় দৈনিক আজকের পত্রিকা আত্মপ্রকাশ করে এপ্রিল, ২০১৩ ইং যাতে উপস্থিত ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, এমপি এবং রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক, এমপি।
  • জানুয়ারী, ২০১৪ ইং এই পত্রিকার অনলাইন সংস্করণ উদ্বোধন করেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক, এমপি ও সাবেক চিফ হুইপ উপাধাক্ষ্য আবদুস শহীদ, এমপি।
  • পত্রিকাটির প্রিন্ট মিডিয়ার উদ্বোধন করেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম. এ মান্নান, এমপি।

বর্তমানে ব্যাপক জনপ্রিয়তার দরুণ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলেও পত্রিকাটির প্রচার উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে।

শিক্ষা

শিক্ষাখাতেও রয়েছে প্রবাসী পল্লী গ্রুপের সফল পদচারনা। প্রবাসী পল্লী গ্রুপের রয়েছে ঃ

ট্রাস্ট

  • মোহাম্মদ মুহিদুর রহমান এন্ড ব্রাদার্স ফাউন্ডেশন।
  • আলহাজ্ব এম.এ গণী এন্ড মিসেস মনোয়ারা খানম এডুকেশন ট্রাষ্ট। সমগ্র সিলেট বিভাগে জুনিয়র বৃত্তি (২০০১-অদ্যবধি)।
  • মিসেস মনোয়ারা খানম মাদ্রাসা বৃত্তি (২০০৯-অদ্যবধি)।
  • মাধ্যমিক ও দাখিল পরিক্ষার্থীদের জন্য বিনামূল্যে মডেল টেস্ট (২০১০- অদ্যবধি)।
  • মরহুমা আয়েশা খাতুন হিফ্জুল কোরআন প্রতিযোগিতা (২০১১- অদ্যবধি)।

 

স্কুল

  • মনোয়ারা-গণী প্রাইমারী স্কুল, ধরগাঁও, কামাল বাজার, দক্ষিণ সুরমা, সিলেট।
  • মুহিদ-এমদাদ প্রাইমারী স্কুল, রুস্তমপুর, গোয়াইনঘাট, সিলেট।
  • হাজী আব্দুল মুসাব্বির প্রাইমারী স্কুল, শেখপাড়া, বিশ্বনাথ, সিলেট।
  • সি.এম খান-জাকারিয়া খান প্রাইমারী স্কুল, খাজানসি, বিশ্বনাথ, সিলেট।
  • জোৎ¯œা-হাবিব প্রাইমারী স্কুল, মেঘাল, মোঘলা বাজার, দক্ষিণ সুরমা, সিলেট।
  • মনোয়ারা-গণী হাইস্কুল, কামাল বাজার, সিলেট (প্রস্তাবিত)।

 

বিশ্ববিদ্যালয়

  • প্রবাসী পল্লী বিশ্ববিদ্যালয় (প্রস্তাবিত)।
  • প্রবাসী পল্লী কলেজ (প্রস্তাবিত)।

 

মাদ্রাসা

  • মরহুমা আয়েশা মহিলা মাদ্রাসা, তালিবপুর, কামাল বাজার, দক্ষিণ সুরমা, সিলেট (বাস্তবায়নাধীন)।
  • মেঘডুবি এম.এ গণী হাফিজিয়া মাদ্রাসা, পূবাইল, গাজীপুর।

 

বিদ্যুৎ প্রকল্প

  • পূর্বাচল প্রবাসী পল্লী প্রকল্পে ৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন বিদ্যুৎ প্রকল্প (অনুমোদিত)।
  • এল.পি.জি গ্যাস প্রকল্প, মংলা (অনুমোদনের অপেক্ষায়)।

 

সমাজসেবা

  • নিমতলী অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে অনুদান প্রদান।
  • প্রবাসী পল্লী গ্রুপ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় বরিশালের বাকেরগঞ্জে মসজিদ ও সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণ করেছে।

 

আবাসন প্রকল্প ছাড়াও প্রবাসী পল্লী গ্রুপের উদ্যোগে আরো বেশ কিছু অবকাঠামোগত উন্নয়ন পরিকল্পনা রয়েছে ঃ

  • প্রবাসী কমার্শিয়াল ব্যাংক।
  • প্রবাসী টেলিভিশন।
  • প্রবাসী এয়ারলাইন্স।
  • সিলেট বিভাগে আন্তর্জাতিক মানের রিসোর্ট।
  • বৈদেশিক ও দেশী বিনিয়োগে বিভিন্ন শিল্পকারখানা স্থাপন।

প্রবাসী পল্লী গ্রুপ আধুনিক বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশের উন্নয়নে এক গর্বিত অংশীদার। বাংলাদেশ সরকারের প্রত্যক্ষ সহযোগীতায় প্রবাসী পল্লী গ্রুপ বিপুল বৈদেশিক মুদ্রার নিরাপদ বিনিয়োগসহ আবাসন সমস্যা সমাধান ও কর্মসংস্থান নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

Copyright © 2018. All Rights Reserved. Probashi Palli Group

TOP